মঙ্গলবার, ২৯ নভেম্বর ২০২২, ১২:৪৪ পূর্বাহ্ন

শুরু হলো নাসা স্পেস অ্যাপস চ্যালেঞ্জ – ২০২২

প্রতিনিধির / ২০ বার
আপডেট : শনিবার, ১ অক্টোবর, ২০২২
শুরু হলো নাসা স্পেস অ্যাপস চ্যালেঞ্জ - ২০২২
শুরু হলো নাসা স্পেস অ্যাপস চ্যালেঞ্জ - ২০২২

বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অব সফটওয়্যার অ্যান্ড ইনফরমেশন সার্ভিসেস-বেসিস, বেসিস স্টুডেন্টস ফোরামের সহযোগিতায় অষ্টমবারের মতো নাসা স্পেস অ্যাপস চ্যালেঞ্জ ২০২২ প্রতিযোগিতা শুরু হয়েছে। শুক্রবার (৩০ সেপ্টেম্বর) থেকে শুরু হওয়া এই হ্যাকাথন একটানা ৩৬ ঘন্টা চলবে। শনিবার পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে এই আয়োজন শেষ হবে।
যুক্তরাষ্ট্রের ন্যাশনাল অ্যারোনটিক্স অ্যান্ড স্পেস অ্যাডমিনিস্ট্র্রেশন-নাসা আন্তর্জাতিকভাবে বিশ্বের ৩১৩টি শহরে এ প্রকল্প বাস্তবায়ন করছে, যেখানে বেসিস বাংলাদেশের ৯টি শহরে (ঢাকা, চট্রগ্রাম সিলেট, রাজশাহী, খুলনা, বরিশাল, রংপুর, ময়মনসিংহ এবং কুমিল্লা) এ আয়োজন করেছে। নাসা স্পেস অ্যাপস চ্যালেঞ্জে এবার ১ কোটি শিক্ষার্থীদের সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে যুক্ত করার পাশাপাশি ২ লাখ শিক্ষার্থীদের সরাসরি ও প্রতিযোগিতায় যুক্ত করার পরিকল্পনা হাতে নেওয়া হয়।

এবার দেশের ৯টি শহর থেকে ২ হাজারেরও বেশি প্রতিযোগী অংশ নিয়েছে। সেখান থেকে শীর্ষ ১১০টি প্রকল্পের মধ্যে হাইব্রিড মডেলে শীর্ষ ৫০টি প্রকল্প নিয়ে ইন্ডিপেন্ডেট ইউনিভার্সিটি, বাংলাদেশ (আইইউবি)-তে এবং বাকি ৬০টি প্রকল্প নিয়ে অনলাইনে অনুষ্ঠিত হচ্ছে ৩০সেপ্টেম্বর -১ অক্টোবর টানা দুইদিনব্যাপী হ্যাকথন।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন বেসিস সভাপতি রাসেল টি আহমেদ, সহ-সভাপতি (প্রশাসন) আবু দাউদ খান, পরিচালক একেএম আহমেদুল ইসলাম বাবু এবং নাসা স্পেস অ্যাপস চ্যালেঞ্জ ২০২২ এর আহ্বায়ক ও বেসিস পরিচালক তানভীর হোসেন খান। এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন নাসা স্পেস অ্যাপস চ্যালেঞ্জের উপদেষ্টা মোহাম্মদ মাহদী-উজ-জামান এবং আরিফুল হাসান অপু।

বেসিস সভাপতি রাসেল টি আহমেদ বলেন, গত বছর বাংলাদেশকে মোট ৯টি জোনে বিভক্ত করে এক হাজারেরও বেশি আবেদন গ্রহণ করা হয়, যার মধ্য থেকে ৫০টি প্রকল্প ভার্চুয়াল হ্যাকথনের জন্য মনোনীত করা হয়। ১৮টি প্রকল্প নাসার চূড়ান্ত প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করে। এর মধ্যে দ্বিতীয়বারের মতো ৪৫৩৪টি দলকে হারিয়ে নাসা স্পেস অ্যাপস চ্যলেঞ্জ ২০২১ এর “বেষ্ট মিশন কনসেপ্ট” ক্যাটাগরিতে বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন হয় বাংলাদেশের খুলনা থেকে চ্যাম্পিয়ন হিসেবে মনোনয়ন পাওয়া “টিম মহাকাশ”। এছাড়াও ২০১৮ সালে ১৩৯৫টি দলকে হারিয়ে নাসা স্পেস অ্যাপস চ্যালেঞ্জ ২০১৮ এর বিশ্ব চ্যাম্পিয়নের খেতাব অর্জন করে নেয় বাংলাদেশ। বেস্ট ইউজ অব ডেটা ক্যাটাগরিতে সিলেট থেকে চ্যাম্পিয়ন হিসেবে মনোনয়ন পাওয়া দল ‘টিম অলিক’। আমরা এবাবের হ্যাকাথন নিয়ে আরও বেশি আশাবাদী।

নাসা স্পেস অ্যাপস চ্যালেঞ্জ ২০২২ এর আহ্বায়ক তানভীর হোসেন খান বলেন, মহাকাশের বিভিন্ন সমস্যার বাইরে জলবায়ু, চাঁদ, অন্যান্য গ্রহ-নক্ষত্রসহ ১৪টি ক্যাটাগরির অধীনে মোট ২৩টি সাব ক্যাটাগরিতে এবার হ্যাকথন অনুষ্ঠিত হচ্ছে। ক্যাটাগরি ভিত্তিক এসব সমস্যা সমাধানে কাজ করছে আমাদের তরুণ বিজ্ঞানীরা। গত ৮ বছরের ধারাবাহিকতায় বাংলাদেশের অবস্থান এখন অনেক ভালো, আশা করছি ২০২২ তে আমাদের অবস্থান আরও সুদৃঢ় হবে।
টানা ৩৬ ঘন্টা হ্যাকথনের পর ১ অক্টোবর ২০২২ তারিখে সন্ধ্যা সাতটায় ইন্ডিপেন্ডেট ইউনিভার্সিটি, বাংলাদেশ (আইইউবি)-এর অডিটোরিয়ামে পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠান আয়োজিত হবে। এতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো সংবাদ