শনিবার, ১০ ডিসেম্বর ২০২২, ০২:৪৫ অপরাহ্ন

উত্তরা-টঙ্গী সড়কে ছিনতাইকারী চক্রের দলনেতাসহ আটক ৫

প্রতিনিধির / ২৩ বার
আপডেট : শুক্রবার, ২১ অক্টোবর, ২০২২
রাজধানীর আব্দুল্লাহপুর বাসস্ট্যান্ড থেকে গাজীপুরের টঙ্গী এলাকার সড়কে ছিনতাইকারী চক্রের মূলহোতা শরীফ হোসেনসহ (২২) ৫ জনকে আটক করেছে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব-১)। আটক অন্যরা হলেন- আব্দুল্লাহ বাবু (২৩), শ্যামল হোসেন ওরফে রাব্বি (২৩), নাছির রাজ (৩০), সাজেদুল আলম ওরফে শাওনকে (২১)। শুক্রবার (২১ অক্টোবর) র‌্যাব-১ এর অধিনায়ক লে. কর্নেল আব্দুল্লাহ আল মোমেন জানান, বৃহস্পতিবার (২০ অক্টোবর) রাতে গাজীপুরের টঙ্গী এলাকায় অভিযান চালিয়ে চক্রের মূলহোতা শরীফ হোসেন, আব্দুল্লাহ বাবু ও শ্যামল হোসেন ওরফে রাব্বিকে আটক করা হয়। এ সময় তাদের কাছ থেকে ছিনতাইকৃত ১টি মোটর সাইকেল, ১০টি মোবাইল ফোন, ১টি হাত ঘড়ি এবং নগদ ২৫ হাজার ৬৩৫ টাকা উদ্ধার করা হয়। পরে তাদের দেওয়া তথ্যমতে শুক্রবার (২১ অক্টোবর) ভোরে গাজীপুর থেকে নাছির রাজ (৩০), সাজেদুল আলম ওরফে শাওনকে (২১) আটক করা হয়। তাদের কাছ থেকে ছিনতাইকৃত ৪৯টি মোবাইল, ২টি কম্পিউটার, ১টি সিসি ক্যামেরা, ১টি ডিভিআর, ২টি ভিসা কার্ড ও নগদ ৩ হাজার ৭৫০ টাকা উদ্ধার করা হয়। র‌্যাবের এই কর্মকর্তা বলেন, আটক শরীফ হোসেন চক্রের মাষ্টারমাইন্ড। তিনি উত্তরা আজমপুর থেকে আব্দুল্লাপুর বাসস্ট্যান্ড হয়ে টঙ্গী স্টেশন রোড পর্যন্ত সড়কের ছিনতাইকারী চক্রের দলনেতা। চক্রের সদস্যরা সন্ধ্যা থেকে গভীর রাত পর্যন্ত চলন্ত গাড়ি থেকে থাবা দিয়ে কিংবা অন্ধকারে পথচারীদের জিম্মি করে মোবাইল ফোন ছিনতাই করতো। এরপর শরীফ স্বল্পমূল্যে মোবাইল কিনে নিয়ে আব্দুল্লাহ বাবু ও শ্যামলের মাধ্যমে বাজারে বিক্রি করতেন। তিনি ৫ বছর ধরে এ কাজের সঙ্গে জড়িত। একদিনে শরীফ সর্বোচ্চ ৫০টি পর্যন্ত মোবাইলফোন সংগ্রহ করার রেকর্ড রয়েছে। আব্দুল্লাহ বাবু ও শ্যামল ছিনতাইকৃত মোবাইলফোন ও অন্যান্য মালামাল বিক্রয়ের কাজে জড়িত। তারা বিভিন্ন দোকান, অনলাইন প্লাটফর্ম ও বিভিন্ন জনের কাছে খুচরা হিসেবে এসব মোবাইল বিক্রি করতেন। আটক নাছির ও শাওন মোবাইল ইঞ্জিনিয়ার। টঙ্গী বাজারে নাছিরের একটি মোবাইল মেরামতের দোকান রয়েছে। ওই দোকানে চোরাই মোবাইলের লক খোলা ও আইএমই পরিবর্তনের কাজ করে থাকে। আটকদের বিরুদ্ধে আইনুগ ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন বলেও জানান র‌্যাব-১ এর অধিনায়ক।
রাজধানীর আব্দুল্লাহপুর বাসস্ট্যান্ড থেকে গাজীপুরের টঙ্গী এলাকার সড়কে ছিনতাইকারী চক্রের মূলহোতা শরীফ হোসেনসহ (২২) ৫ জনকে আটক করেছে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব-১)। আটক অন্যরা হলেন- আব্দুল্লাহ বাবু (২৩), শ্যামল হোসেন ওরফে রাব্বি (২৩), নাছির রাজ (৩০), সাজেদুল আলম ওরফে শাওনকে (২১)। শুক্রবার (২১ অক্টোবর) র‌্যাব-১ এর অধিনায়ক লে. কর্নেল আব্দুল্লাহ আল মোমেন জানান, বৃহস্পতিবার (২০ অক্টোবর) রাতে গাজীপুরের টঙ্গী এলাকায় অভিযান চালিয়ে চক্রের মূলহোতা শরীফ হোসেন, আব্দুল্লাহ বাবু ও শ্যামল হোসেন ওরফে রাব্বিকে আটক করা হয়। এ সময় তাদের কাছ থেকে ছিনতাইকৃত ১টি মোটর সাইকেল, ১০টি মোবাইল ফোন, ১টি হাত ঘড়ি এবং নগদ ২৫ হাজার ৬৩৫ টাকা উদ্ধার করা হয়। পরে তাদের দেওয়া তথ্যমতে শুক্রবার (২১ অক্টোবর) ভোরে গাজীপুর থেকে নাছির রাজ (৩০), সাজেদুল আলম ওরফে শাওনকে (২১) আটক করা হয়। তাদের কাছ থেকে ছিনতাইকৃত ৪৯টি মোবাইল, ২টি কম্পিউটার, ১টি সিসি ক্যামেরা, ১টি ডিভিআর, ২টি ভিসা কার্ড ও নগদ ৩ হাজার ৭৫০ টাকা উদ্ধার করা হয়। র‌্যাবের এই কর্মকর্তা বলেন, আটক শরীফ হোসেন চক্রের মাষ্টারমাইন্ড। তিনি উত্তরা আজমপুর থেকে আব্দুল্লাপুর বাসস্ট্যান্ড হয়ে টঙ্গী স্টেশন রোড পর্যন্ত সড়কের ছিনতাইকারী চক্রের দলনেতা। চক্রের সদস্যরা সন্ধ্যা থেকে গভীর রাত পর্যন্ত চলন্ত গাড়ি থেকে থাবা দিয়ে কিংবা অন্ধকারে পথচারীদের জিম্মি করে মোবাইল ফোন ছিনতাই করতো। এরপর শরীফ স্বল্পমূল্যে মোবাইল কিনে নিয়ে আব্দুল্লাহ বাবু ও শ্যামলের মাধ্যমে বাজারে বিক্রি করতেন। তিনি ৫ বছর ধরে এ কাজের সঙ্গে জড়িত। একদিনে শরীফ সর্বোচ্চ ৫০টি পর্যন্ত মোবাইলফোন সংগ্রহ করার রেকর্ড রয়েছে। আব্দুল্লাহ বাবু ও শ্যামল ছিনতাইকৃত মোবাইলফোন ও অন্যান্য মালামাল বিক্রয়ের কাজে জড়িত। তারা বিভিন্ন দোকান, অনলাইন প্লাটফর্ম ও বিভিন্ন জনের কাছে খুচরা হিসেবে এসব মোবাইল বিক্রি করতেন। আটক নাছির ও শাওন মোবাইল ইঞ্জিনিয়ার। টঙ্গী বাজারে নাছিরের একটি মোবাইল মেরামতের দোকান রয়েছে। ওই দোকানে চোরাই মোবাইলের লক খোলা ও আইএমই পরিবর্তনের কাজ করে থাকে। আটকদের বিরুদ্ধে আইনুগ ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন বলেও জানান র‌্যাব-১ এর অধিনায়ক।

রাজধানীর আব্দুল্লাহপুর বাসস্ট্যান্ড থেকে গাজীপুরের টঙ্গী এলাকার সড়কে ছিনতাইকারী চক্রের মূলহোতা শরীফ হোসেনসহ (২২) ৫ জনকে আটক করেছে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব-১)।আটক অন্যরা হলেন- আব্দুল্লাহ বাবু (২৩), শ্যামল হোসেন ওরফে রাব্বি (২৩), নাছির রাজ (৩০), সাজেদুল আলম ওরফে শাওনকে (২১)।

শুক্রবার (২১ অক্টোবর) র‌্যাব-১ এর অধিনায়ক লে. কর্নেল আব্দুল্লাহ আল মোমেন জানান, বৃহস্পতিবার (২০ অক্টোবর) রাতে গাজীপুরের টঙ্গী এলাকায় অভিযান চালিয়ে চক্রের মূলহোতা শরীফ হোসেন, আব্দুল্লাহ বাবু ও শ্যামল হোসেন ওরফে রাব্বিকে আটক করা হয়।=এ সময় তাদের কাছ থেকে ছিনতাইকৃত ১টি মোটর সাইকেল, ১০টি মোবাইল ফোন, ১টি হাত ঘড়ি এবং নগদ ২৫ হাজার ৬৩৫ টাকা উদ্ধার করা হয়।

পরে তাদের দেওয়া তথ্যমতে শুক্রবার (২১ অক্টোবর) ভোরে গাজীপুর থেকে নাছির রাজ (৩০), সাজেদুল আলম ওরফে শাওনকে (২১) আটক করা হয়। তাদের কাছ থেকে ছিনতাইকৃত ৪৯টি মোবাইল, ২টি কম্পিউটার, ১টি সিসি ক্যামেরা, ১টি ডিভিআর, ২টি ভিসা কার্ড ও নগদ ৩ হাজার ৭৫০ টাকা উদ্ধার করা হয়।

র‌্যাবের এই কর্মকর্তা বলেন, আটক শরীফ হোসেন চক্রের মাষ্টারমাইন্ড। তিনি উত্তরা আজমপুর থেকে আব্দুল্লাপুর বাসস্ট্যান্ড হয়ে টঙ্গী স্টেশন রোড পর্যন্ত সড়কের ছিনতাইকারী চক্রের দলনেতা। চক্রের সদস্যরা সন্ধ্যা থেকে গভীর রাত পর্যন্ত চলন্ত গাড়ি থেকে থাবা দিয়ে কিংবা

অন্ধকারে পথচারীদের জিম্মি করে মোবাইল ফোন ছিনতাই করতো। এরপর শরীফ স্বল্পমূল্যে মোবাইল কিনে নিয়ে আব্দুল্লাহ বাবু ও শ্যামলের মাধ্যমে বাজারে বিক্রি করতেন। তিনি ৫ বছর ধরে এ কাজের সঙ্গে জড়িত। একদিনে শরীফ সর্বোচ্চ ৫০টি পর্যন্ত মোবাইলফোন সংগ্রহ করার রেকর্ড রয়েছে।

আব্দুল্লাহ বাবু ও শ্যামল ছিনতাইকৃত মোবাইলফোন ও অন্যান্য মালামাল বিক্রয়ের কাজে জড়িত। তারা বিভিন্ন দোকান, অনলাইন প্লাটফর্ম ও বিভিন্ন জনের কাছে খুচরা হিসেবে এসব মোবাইল বিক্রি করতেন।আটক নাছির ও শাওন মোবাইল ইঞ্জিনিয়ার। টঙ্গী বাজারে নাছিরের একটি মোবাইল মেরামতের দোকান রয়েছে। ওই দোকানে চোরাই মোবাইলের লক খোলা ও আইএমই পরিবর্তনের কাজ করে থাকে।

আটকদের বিরুদ্ধে আইনুগ ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন বলেও জানান র‌্যাব-১ এর অধিনায়ক।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো সংবাদ