শিরোনাম:
বুধবার, ০৭ ডিসেম্বর ২০২২, ০৫:০৭ অপরাহ্ন

১৭ হাজার মন পাট ও ৬০ হাজার বস্তা পুড়ে ছাই

প্রতিনিধির / ৩৪ বার
আপডেট : মঙ্গলবার, ৮ নভেম্বর, ২০২২
১৭ হাজার মন পাট ও ৬০ হাজার বস্তা পুড়ে ছাই
১৭ হাজার মন পাট ও ৬০ হাজার বস্তা পুড়ে ছাই

গুদামের শ্রমিকরা জানান, হঠাৎ মধ্যরাতে এলাকাবাসীর চিৎকারে তাদের ঘুম ভেঙে যায়। বেরিয়ে দেখেন গুদামে আগুন জ্বলছে। গুদামের সামনের দিকে লাগা আগুন মুহূর্তের মধ্যেই ছড়িয়ে যায়। ১০ টি গুদাম মুহুর্তেই শেষ হয়ে যায়।

সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়ায় আগুনে পুড়ে গেছে ১০টি পাটের গুদাম। এতে প্রায় ১৭ হাজার মন পাট ও ৬০ হাজার পিস পাটের বস্তা পুছে গেছে।

গতকাল সোমবার দিবাগত রাত ২টার দিকে পৌরশহরের ঝিকিড়া পাট বন্দর এলাকার বৃহত্তর পাটের গুদামে এ আগুন লাগার ঘটনা ঘটে। এতে প্রায় ৮ কোটি টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে বলে জানিয়েছে মালিকপক্ষ।

ঘটনাস্থলে সরেজমিনে গিয়ে জানা যায়, গোডাউনগুলো ভাড়া নিয়ে ১৩ জন ব্যবসায়ী পাট মজুদ করে রাখতেন। তাদের মধ্যে মোকলেছুর রহমান ডাবলুর ২৫০০ মন, ইউনুছ আলী তালুকদারের ১২০০ মন, আইয়ুব আলীর ৪০০ মন, শামীম রেজার ২০০ মন, রিপনের ১০০০ মন, শ্রী গজন কুমার সাহার ১২০০ মন, আসাদুল ইসলামের ৪০০০ মন, রজব আলীর ২০০০ মন, সোলাইমানের ২০০০ মন, আব্দুর রউফ সরকারের ২৫০ মন, শ্রী লোটন কুমার কুন্ডুর ৩০০ মন, শহিদুল ইসলামের ৬০ হাজার বস্তা। এ ছাড়া আরও অনেক ব্যবসায়ী তারা সেখানে পাট ও পাটের বস্তা মজুত করে পরে সেখান থেকে রপ্তানি করতেন।

সংবাদ পেয়ে রাতেই ঘটনাস্থলে এসে আগুন নিয়ন্ত্রণের কাজ শুরু করে উল্লাপাড়া ফায়ার সার্ভিস। পরে পাবনাসহ পাশ্ববর্তী উপজেলা থেকে যোগ দেয় আরও ৭ টি ইউনিট। মোট ৮টি ইউনিটের ৬ ঘণ্টার চেষ্টায় আজ সকাল ৭টার দিকে আগুন নিয়ন্ত্রণে আসে।

গুদামে থাকা পাটের মালিক আসাদুল ইসলাম জানান, গুদামে তার ৪ হাজার মন পাট ছিল। বর্তমানে যার বাজার মূল্য প্রায় দেড় কোটি টাকা। এত বড় ক্ষতি হওয়ায় তিনি এখন নিঃস্ব। পরিবার পরিজন নিয়ে কিভবে দিন চলবে কান্নাজড়িত কণ্ঠে এমনটাই বলছিলেন তিনি।

অপর এক ব্যবসায়ী ইউনুছ আলী জানান, গুদামে ১ হাজার ২০০ মন পাট রেখে পরে রপ্তানি করতে চেয়েছিলেন। কিন্তু রাতের আঁধারে এমন ঘটনা সব আশা ভরসা শেষ করে দিল। আগুন নিভলেও রেখে গেল ক্ষতের চিহ্ন।উল্লাপাড়া পাট বন্দর বনিক সমিতির সহসভাপতি মোকলেছুর রহমান ডাবলু জানান, গুদামে তার ২ হাজার ৫০০ মন পাট মজুদ ছিল। কিছুদিন আগে কৃষকদের থেকে পাট সংগ্রহ করে গুদামে মজুদ করে রাখা হয়েছিল। এমন ঘটনায় সব শেষ হয়ে গেল। তবে আগুন লেগে পাট পুড়ে যাওয়ায় ঘটনায় এসব অঞ্চলে পাটের সংকট দেখা দিতে পারে।

উল্লাপাড়া জুট ইন্সপেক্টর রফিকুল ইসলাম জানান, রাত ২টার দিকে এই ঘটনা ঘটে। ১০টি গুদামে থাকা প্রায় ১৭ হাজার মন পাট এবং ৬০ হাজার পিস বস্তা পুরে ছাই হয়ে গেছে। এতে ক্ষতির পরিমাণ প্রায় ৮ কোটি টাকা।এ বিষয়ে ফায়ার সার্ভিসের সহকারি পরিচালক (পাবনা অঞ্চল) সাফিউল হাসান ভূইয়া জানান, অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় কেউ হতাহত হয়নি। তবে এতে প্রায় ৮ কোটি টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। আগুন লাগার কারণ তদন্তের পর জানা যাবে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো সংবাদ