বুধবার, ০৭ ডিসেম্বর ২০২২, ১২:৪৯ অপরাহ্ন

গোয়েন্দা সংস্থার তথ্য বিশ্লেষণ করে সমাবেশের অনুমতি

প্রতিনিধির / ১৯ বার
আপডেট : মঙ্গলবার, ১৫ নভেম্বর, ২০২২
গোয়েন্দা সংস্থার তথ্য বিশ্লেষণ করে সমাবেশের অনুমতি
গোয়েন্দা সংস্থার তথ্য বিশ্লেষণ করে সমাবেশের অনুমতি

সমাবেশের অনুমতি পেতে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) কমিশনার খন্দকার গোলাম ফারুকের সাথে সাক্ষাৎ করতে ডিএমপি কার্যালয়ে যায় বিএনপির প্রতিনিধি দল।

আগামী ১০ ডিসেম্বর রাজধানীতে ঢাকা বিভাগের গণসমাবেশ করতে চায় বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল (বিএনপি)। গোয়েন্দা সংস্থার দেয়া তথ্য বিশ্লেষণ করে তাদের এ সমাবেশের অনুমতি দেয়া হবে বলে জানিয়েছেন ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) উপ-পুলিশ কমিশনার মো: ফারুক হোসেন।মঙ্গলবার (১৫ নভেম্বর) দুপুরে মিন্টো রোডের ডিএমপি মিডিয়া সেন্টারে সাংবাদিকদের তিনি এ কথা বলেন। তবে কবে নাগাদ অনুমতি দেয়া যাবে তা নির্দিষ্ট করে বলা যাচ্ছে না বলেও জানান তিনি।

তিনি বলেন, বিএনপি ঢাকা বিভাগে যে গণসমাবেশ করবে সেটার অনুমতির জন্য দলটির নেতারা ডিএমপি কমিশনারের সাথে দেখা করেন। তারা সমাবেশের অনুমতি চেয়ে একটি আবেদন করেন।মো: ফারুক হোসেন বলেন, ‘আমরা লিখিত দরখাস্ত পেয়েছি, এখন সেটি বিবেচনা করে দেখবো অনুমতি দেয়া যায় কি না। আমাদের যে গোয়েন্দা সংস্থা রয়েছে তাদের তথ্য বিশ্লেষণ করে দেখবো কোনো ধরনের ঝুঁকি রয়েছে কি না।’

পরে বেলা সাড়ে ১১টার দিকে ডিএমপি সদর দফতর থেকে বেরিয়ে বিএনপির ঢাকা মহানগর উত্তরের আহ্বায়ক আমান উল্লাহ আমান বলেন, বিএনপি নয়াপল্টনের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে শান্তিপূর্ণ গণসমাবেশ করতে চায়। সমাবেশকে কেন্দ্র করে যাতে গণপরিবহন বন্ধ করে দেয়া না হয়, সে বিষয়েও ডিএমপি কনিশনারের কাছে জানানো হয়েছে।

আমান বলেন, দেশে জ্বালানি তেলসহ দ্রব্যমূল্যের অস্বাভাবিক বৃদ্ধি ও দলের পাঁচ নেতা-কর্মী হত্যার প্রতিবাদ, দলের চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার মুক্তি এবং নির্দলীয় সরকারের অধীন সংসদ নির্বাচনের দাবিতে বিভাগীয় শহরে ধারাবাহিক গণসমাবেশ করেছে বিএনপি। এরই ধারাবাহিকতায় আগামী ১০ ডিসেম্বরের সমাবেশে বিএনপির নেতা-কর্মীদের আসতে বাধা দেয়া, আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীরা যেন কোনো বিশৃঙ্খলা তৈরি করতে না পারে, সেসব বিষয়ে জানানো হয়েছে ডিএমপি কমিশনারকে।সমাবেশকে কেন্দ্র করে যাতে গণপরিবহন বন্ধ করে দেয়া না হয়, সে বিষয়েও ডিএমপি কমিশনারের কাছে জানানো হয়েছে বলে উল্লেখ করেন তিনি।

এ সময় ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন জায়গায় বিএনপির নেতা-কর্মীদের গ্রেফতার করা হচ্ছে বলে অভিযোগ করেন আমান উল্লাহ।প্রতিনিধি দলে ছিলেন- ঢাকা মহানগর উত্তরের আহ্বায়ক কমিটির আহ্বায়ক আব্দুস সালাম, কেন্দ্রীয় যুগ্ম মহাসচিব সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, সাংগঠনিক সম্পাদক অ্যাডভোকেট আব্দুস সালাম, প্রচার সম্পাদক ও বিএনপি মিডিয়া সেল সদস্য সচিব শহীদ উদ্দীন চৌধুরী এ্যানি, বিএনপি ঢাকা মহানগর উত্তর ও দক্ষিণ সদস্য সচিব আমিনুল হক ও রফিকুল আলম মজনু।

 

 

 


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো সংবাদ