শনিবার, ০৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ০৮:১৮ পূর্বাহ্ন

টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা এসডিজি অর্জনে বড় বাধা তামাক

প্রতিনিধির / ১৪ বার
আপডেট : মঙ্গলবার, ২৭ ডিসেম্বর, ২০২২
টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা এসডিজি অর্জনে বড় বাধা তামাক
টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা এসডিজি অর্জনে বড় বাধা তামাক

টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা (এসডিজি) অর্জনে বড় বাধা হিসেবে কাজ করছে তামাক। ২০৩০ সালের মধ্যে এসডিজি’র লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে তামাক নিয়ন্ত্রণ আইন শক্তিশালীকরণের কোনো বিকল্প নেই।মঙ্গলবার (২৭ ডিসেম্বর) বেলা ১১টায় এক ভার্চুয়াল বৈঠকে বিশেষজ্ঞ ও তামাকবিরোধী নেতারা এই কথা বলেন। ‘টেকসই উন্নয়নে শক্তিশালী তামাক নিয়ন্ত্রণ আইন: বাংলাদেশ পরিপ্রেক্ষিত’ শীর্ষক এই ভার্চুয়াল বৈঠক হয়।এটি আয়োজন করে প্রজ্ঞা (প্রগতির জন্য জ্ঞান) ও অ্যান্টি টোব্যাকো মিডিয়া এলায়েন্স-আত্মা এবং ক্যাম্পেইন ফর টোব্যাকো ফ্রি কিডস (সিটিএফকে)।

ভার্চুয়াল বৈঠকে জানানো হয়, দেশে তামাক ব্যবহারের কারণে বছরে এক লাখ ৬১ হাজার মানুষ মৃত্যুবরণ করে। আর পঙ্গুত্ববরণ করে আরও কয়েক লাখ মানুষ। তামাক ব্যবহারজনিত মৃত্যু এবং অসুস্থতা এসডিজি’র তৃতীয় লক্ষ্যমাত্রা-সুস্বাস্থ্য অর্জনের একটি বড় বাধা।বাংলাদেশে যারা তামাক ব্যবহার করে তাদের পরিবারের মাসিক খরচের ৫ শতাংশ তামাকে এবং ১০ শতাংশ তামাক ব্যবহারজনিত রোগের চিকিৎসায় ব্যয় হয় বলে বৈঠকে জানানো হয়।

তামাক ব্যবহারে দরিদ্র মানুষ আরও দরিদ্র হয়ে পড়ছে বলে বৈঠকে আলোচকরা জানান। তারা বলেন, তামাক ব্যবহারের স্বাস্থ্য ব্যয় ৩০ হাজার ৫০০ কোটি টাকা। তামাক চাষে ব্যবহৃত মোট জমি এবং উৎপাদিত তামাক পাতার পরিমাণ- এই দুই বিবেচনায় বিশ্বে বাংলাদেশের অবস্থান যথাক্রমে ১৪তম এবং ১২তম। ক্রমবর্ধমান তামাকচাষের কারণে দেশের খাদ্য নিরাপত্তা ও টেকসই কৃষি (লক্ষ্যমাত্রা-২) ক্রমশঃ হুমকির মুখে পড়ছে।

আরও বলা হয়, লিঙ্গ সমতা (লক্ষ্যমাত্রা-৫) টেকসই উন্নয়নের গুরুত্বপূর্ণ লক্ষ্য হলেও বাংলাদেশে তামাক ব্যবহার না করেও, পরোক্ষ ধূমপানের শিকার হচ্ছে বিপুল সংখ্যক নারী। এছাড়া তামাকচুল্লিতে পাতা পোড়াতে গিয়ে উজাড় হচ্ছে দেশের ৩০ শতাংশ বন। ফলে জলবায়ু পরিবর্তনের (লক্ষ্যমাত্রা ১৩) ঝুঁকি ক্রমশঃ বেড়ে চলেছে।২০২০-২১ অর্থবছরে দেশে মোট ৭১ বিলিয়ন সিগারেট শলাকা উৎপাদিত হয়েছে বলে জানানো হয় বৈঠকে।

এসময় বৈঠকে বলা হয়, তামাক নিয়ন্ত্রণ আইন সংশোধনের বিভিন্ন ধারা ভুলভাবে উপস্থাপন করে জনগণ, নীতিনির্ধারক এবং এবং অন্যান্য মন্ত্রণালয়কে বিভ্রান্ত করার চেষ্টা করছে তামাক কোম্পানিগুলো। এতে বিভ্রান্ত না হয়ে খসড়াটি দ্রুত চূড়ান্ত করার আহ্বান জানান আলোচকরা।ভার্চুয়াল বৈঠকে বিশিষ্ট অর্থনীতিবিদ জাতীয় তামাকবিরোধী মঞ্চের আহ্বায়ক ড. কাজী খলীকুজ্জমান আহমদ বলেন, আইন সংশোধনের উদ্যোগ গ্রহণ করার জন্য স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়কে ধন্যবাদ জানাই। সংশোধনী প্রস্তাবগুলো যেন শেষ পর্যন্ত বহাল থাকে। কোম্পানিগুলোর লম্বা হাত যেন সেখানে না ঢুকতে পারে তা নিশ্চিত করতে হবে।

তিনি আরও বলেন, তামাক কোম্পানিতে সরকারের যে মালিকানা আছে সেটা ছেড়ে দিতে হবে এবং যারা নীতিনির্ধারণ করেন তারা যেন রাজস্বের দিকে না তাকিয়ে তামাকের কারণে স্বাস্থ্যখাতে যে ব্যয় হয় সেই দিকটা দেখেন।

প্রথম আলোর সহযোগী সম্পাদক আব্দুল কাইয়ুম বলেন, আমাদের তরুণদের বোঝাতে হবে ধূমপান ছেড়ে দিলে তারা ভালো থাকবে। হার্টের অসুখ, ক্যানসারের ঝুঁকি কমে যাবে। এক্ষেত্রে গণমাধ্যমেরও দায়িত্ব রয়েছে। আমি মনে করি ২০৪০ সালের মধ্যে তামাকমুক্ত বাংলাদেশ গড়তে চাইলে আইন শক্তিশালী করার পাশাপাশি এরকম কিছু পদক্ষেপ নিতে হবে।সিটিএফকে -বাংলাদেশে লিড পলিসি অ্যাডভাইজর মো. মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, তামাক কোম্পানিগুলোর জনস্বাস্থ্যের ক্ষতির বিপরীতে কোনো যৌক্তিক বক্তব্য উপস্থাপনের সুযোগ নেই। তাই তারা আইন সংশোধন ঠেকাতে মানুষের কর্মসংস্থান কমে যাওয়া, সরকার রাজস্ব হারানো ইত্যাদি তথ্য প্রচার করে বিভ্রান্ত করার চেষ্টা করছে।

অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য রাখেন জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের সাবেক চেয়ারম্যান ড. মোহাম্মদ আব্দুল মজিদ, স্বাস্থ্য সুরক্ষা ফাউন্ডেশনের নির্বাহী পরিচালক ডা. নিজাম উদ্দিন আহমেদ, আত্মা’র কনভেনর মর্তুজা হায়দার লিটন প্রমুখ।

স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে তামাক নিয়ন্ত্রণ আইনের খসড়া সংশোধনীতে যেসব প্রস্তাব করা হয়েছে তারমধ্যে রয়েছে- সব পাবলিক প্লেস ও পাবলিক পরিবহনে ‘ধূমপানের জন্য নির্ধারিত স্থান’ রাখার বিধান বিলুপ্ত করা, বিক্রয়স্থলে তামাকজাত দ্রব্য বা প্যাকেট প্রদর্শন নিষিদ্ধ করা, তামাক কোম্পানির সামাজিক দায়বদ্ধতা কর্মসূচিতে অংশগ্রহণ সম্পূর্ণভাবে নিষিদ্ধ করা, সব ধরনের খুচরা বা খোলা তামাকজাত দ্রব্য বিক্রি নিষিদ্ধ করা, ই-সিগারেট, ভ্যাপিং, হিটেড টোব্যাকো প্রোডাক্টসহ এ ধরনের সব পণ্য উৎপাদন, আমদানি ক্রয়-বিক্রয় নিষিদ্ধ করা এবং তামাকজাত দ্রব্যের প্যাকেট বা মোড়কে সচিত্র স্বাস্থ্য সতর্কবার্তার আকার ৫০ শতাংশ থেকে বৃদ্ধি করে ৯০ শতাংশ করা।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো সংবাদ