সোমবার, ৩০ জানুয়ারী ২০২৩, ১১:৫০ পূর্বাহ্ন

চট্টগ্রামে প্রাথমিকের বৃত্তি পরীক্ষায় অংশ নিল ২৯ হাজার শিক্ষার্থী

প্রতিনিধির / ১২ বার
আপডেট : শুক্রবার, ৩০ ডিসেম্বর, ২০২২
চট্টগ্রামে প্রাথমিকের বৃত্তি পরীক্ষায় অংশ নিল ২৯ হাজার শিক্ষার্থী
চট্টগ্রামে প্রাথমিকের বৃত্তি পরীক্ষায় অংশ নিল ২৯ হাজার শিক্ষার্থী

প্রায় ১৩ বছর পর অনুষ্ঠিত পঞ্চম শ্রেণি বৃত্তি পরীক্ষায় চট্টগ্রামে অংশ নিয়েছে ২৯ হাজার ৩৯৯ জন শিক্ষার্থী। নগরীর ১৪টি ও জেলার ১৫ উপজেলার ২৭টিসহ মোট ৪১টি কেন্দ্রে ২৯ হাজার ৩৯৯ জন শিক্ষার্থী প্রাথমিক বৃত্তি পরীক্ষায় অংশ নিয়েছে। এর মধ্যে ইংরেজি ভার্সনের শিক্ষার্থী ছিল ৩৩৩ জন। প্রাথমিক সমাপনী পরীক্ষা বন্ধ থাকায় পৃথক এই পরীক্ষার মাধ্যমে শিক্ষার্থীদের বৃত্তি পরীক্ষা নেওয়ার সিদ্ধান্ত নেয় প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়।

জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিস সূত্রে জানা যায়, ৬টি শিক্ষা থানার আওতায় ৯ হাজার ৯৪১ জন শিক্ষার্থী এবং উপজেলায় ১৯ হাজার ৪৫৮ জন শিক্ষার্থী রয়েছে। এরমধ্যে বাঁশখালী উপজেলার ১ হাজার ৬৪৩ জন, রাউজানের ১ হাজার ৬০৩ জন, সন্দ্বীপের ১ হাজার ১৭৩ জন, ফটিকছড়ির ১ হাজার ৮৫০ জন, পটিয়ার ১ হাজার ৫২৩ জন, আনোয়ারার ১ হাজার ১৯৫ জন, বোয়ালখালীর ৯৭২ জন, লোহাগাড়ার ১ হাজার ৫২ জন, ডবলমুরিং থানার ১ হাজার ৭৬০ জন, চন্দনাইশের ৯৭৮ জন, হাটহাজারীর ১ হাজার ৩৯৯ জন, রাঙ্গুনিয়ার ১ হাজার ১৫৬ জন, মিরসরাইয়ের ১ হাজার ৫৫৪ জন, সীতাকুণ্ডের ১ হাজার ৬০০ জন, পাহাড়তলী থানার ১ হাজার ২৮০ জন, বন্দর থানার ১ হাজার ৪৬৯ জন, পাঁচলাইশ থানার ২ হাজার ১ জন, চান্দগাঁও থানার ১ হাজার ৫৪৮ জন, কোতোয়ালি থানার ১ হাজার ৩২০ জন, সাতকানিয়ার ১ হাজার ৬৭২ জন, এবং কর্ণফুলী উপজেলার ৬৫১ জন শিক্ষার্থী।

জানা যায়, স্কুলের বার্ষিক মূল্যায়ন পরীক্ষায় যারা ভালো করেছে, তাদের মধ্য থেকে ১০ শতাংশ শিক্ষার্থী এই পরীক্ষায় অংশ নিবে। ২ ঘণ্টার মধ্যে বাংলা, ইংরেজি, বিজ্ঞান ও গণিতসহ চার বিষয়ে ২০০ নম্বরের পরীক্ষায় অংশ নিতে হবে শিক্ষার্থীদের।
চট্টগ্রাম জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার (ডিপিইও) মো. শহীদুল ইসলাম বলেন, ব্যাপক উৎসাহ-উদ্দীপনায় শিক্ষার্থীরা সরকারী প্রাথমিক বৃত্তি পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করেছে। দীর্ঘ ১৩ বছর পর আবারও অত্যন্ত সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ পরিবেশে প্রাথমিক বৃত্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হওয়ায় অভিভাবকরাও আনন্দিত। নগরীর বাইরে বিভিন্ন উপজেলার কেন্দ্রগুলোতেও সংশ্লিষ্ট উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটগণ, উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার, সহকারী শিক্ষা অফিসার ও সংশ্লিষ্ট শিক্ষকগণ বৃত্তি পরীক্ষা সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন করার দায়িত্বে ছিল। আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরাও প্রত্যেক পরীক্ষা কেন্দ্রে আন্তরিকভাবে দায়িত্ব পালন করেছেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো সংবাদ