শিরোনাম:
মঙ্গলবার, ৩১ জানুয়ারী ২০২৩, ০৩:১৮ অপরাহ্ন

৩৪ লাখ টাকায় দেশে মিলবে হুন্দাই ক্রেটা এসইউভি

প্রতিনিধির / ৪ বার
আপডেট : মঙ্গলবার, ২৪ জানুয়ারী, ২০২৩
৩৪ লাখ টাকায় দেশে মিলবে হুন্দাই ক্রেটা এসইউভি
৩৪ লাখ টাকায় দেশে মিলবে হুন্দাই ক্রেটা এসইউভি

এতদিন ফেয়ার গ্রুপ ইন্দোনেশিয়া থেকে এনে ‘হুন্দাই ক্রেটা’ বিক্রি করত, যা কিনতে গুণতে হতো প্রায় ৪৩ লাখ টাকা।কোম্পানির পরিচালক মুতাসসিম দায়ান মঙ্গলবার তেজগাঁওয়ে ফেয়ার টেকনোলজির শো রূমে এক সংবাদ সম্মেলনে বলেন, বাংলাদেশে সংযোজিত হুন্দাই ক্রেটার দম পড়বে ৩৪ লাখ ৫০ হাজার টাকা।

দক্ষিণ কোরিয়ার অটোমোবাইল ব্র্যান্ড হুন্দাই মোটরসের ‘হুন্দাই ক্রেটা’ এসইউভি বাংলাদেশে সংযোজনের পর এ গাড়ি কেনার খরচ প্রায় সাড়ে আট লাখ টাকা কমে আসবে বলে জানিয়েছে এর পরিবেশক প্রতিষ্ঠান ফেয়ার টেকনোলজি লিমিটেড।মুতাসসিম দায়ান বলেন, “আমরা ফেয়ার টেকনোলজি অত্যন্ত আনন্দিত ও গর্বিত যে হুন্দাইয়ের সাথে আমরা স্ট্র্যাটেজিক পার্টনারশিপ গড়ে তুলেছি। ফেয়ার টেকনোলজির হুন্দাই অটোমোবাইল ফ্যাক্টরির গত ১৯ জানুয়ারি আনুষ্ঠানিক যাত্রা শুরু করেছে।

গাজীপুরের কালিয়াকৈরে বঙ্গবন্ধু হাইটেক পার্কের ‘ফেয়ার টেকনোলজি হুন্দাই ফ্যাক্টরি’তে সম্প্রতি এই এসইউভি সংযোজন শুরু হয়েছে। সেখানে হুন্দাইয়ের আরও বেশ কিছু মডেলের গাড়ি উৎপাদন করা হবে বলে কারখানা কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে।

আমাদের বহু দিনের স্বপ্ন ছিল, বাংলাদেশের রাজপথে চলবে বাংলাদেশে উৎপাদিত গাড়ি। সেই স্বপ্ন আজ বাস্তবতায় রূপ নিয়েছে। হুন্দাই ম্যানুফ্যাকচারিং প্ল্যান্টে আমরা প্রথম মডেল হিসাবে হুন্দাইয়ের জনপ্রিয় এসইউভি- ক্রেটা উৎপাদন শুরু করেছি। সরকার এরই মধ্যে স্থানীয় পর্যায়ে গাড়ি উৎপাদনে নীতি সহায়তা দিয়েছেন, যার ফলশ্রুতিতে আমরা এই কারখানা স্থাপন করতে সক্ষম হয়েছি।”

অনুষ্ঠানে জানানো হয়, শুরুতে হুন্দাই ক্রেটার দাম ৩৪ লাখ ৫০ হাজার টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে, পাশাপাশি গ্রাহকরা পাবেন ৫ বছর বা এক লাখ কিলোমিটার মাইলেজ পর্যন্ত ওয়ারেন্টি সুবিধা, যা আমদানি করা গাড়ির জন্য ৩ বছর ছিল।

এছাড়া হুন্দাই ক্রেটার গ্রাহকদের জন্য রয়েছে বাই-ব্যাক সুবিধা। ৩ বছর বা ৪০ হাজার কিলোমিটার মাইলেজের মধ্যে ক্রয়মূল্যের সর্বোচ্চ ৬০ শতাংশ দামে কোম্পানির কাছে গাড়ি বিক্রি করে দিতে পারবেন গ্রাহক।

ফেয়ার টেকনলজি জানায়, গাজীপুরের কারখানায় প্রায় এক হাজার যন্ত্রাংশ সংযোজন করছে তারা। পাশাপাশি গাড়ির রঙয়ের কাজটি সেখানেই করা হয়। সরকারের মেইড ইন বাংলাদেশ নীতিমালা অনুযায়ী এটি বাংলাদেশের তৈরি গাড়ির মর্যাদা পেয়েছে। সে কারণেই কোম্পানি তুলনামূলক কম দামে গাড়ি বাজারজাত করতে পারছে।

ফেয়ার টেকনোলজির হেড অফ বিজনেস অরিন্দম চক্রবর্তী,  হেড অফ কমিউনিকেশন অ্যান্ড কর্পোরেট ফিলানথ্রপি হাসনাইন খুরশিদ, ফেয়ার গ্রুপের হেড অফ মার্কেটিং জে এম তসলীম কবির এবং ফেয়ার টেকনোলজির হেড অফ সেলস আবু নাসের মাহমুদ সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো সংবাদ