বুধবার, ২১ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০৮:২৫ পূর্বাহ্ন

ভোমরা স্থলবন্দর দিয়ে ৫০০ কোটি টাকার বেশি চাল আমদানি

প্রতিনিধির / ৫৫ বার
আপডেট : রবিবার, ৫ ফেব্রুয়ারী, ২০২৩
স্থলবন্দর দিয়ে ৫০০ কোটি টাকার বেশি চাল আমদানি
স্থলবন্দর দিয়ে ৫০০ কোটি টাকার বেশি চাল আমদানি

চলতি অর্থবছরের প্রথম সাত মাসে ভোমরা স্থলবন্দর দিয়ে ৫০০ কোটি টাকার বেশি চাল আমদানি হয়েছে। গত অর্থবছরের একই সময়ের তুলনায় আমদানি বেড়েছে প্রায় ৩০ শতাংশ।

ভোমরা শুল্ক স্টেশনের রাজস্ব শাখা থেকে জানা গেছে, চলতি ২০২২-২৩ অর্থবছরের জুলাই-জানুয়ারি সাত মাসে ভোমরা স্থলবন্দর দিয়ে চাল আমদানি হয়েছেে এক লাখ ২৪ হাজার ৪০৫ টন, যার আমদানি মূল্য ৫০১ কোটি ৪৪ লাখ টাকা। এখান থেকে সরকারের রাজস্ব আয় হয়েছে ৩১ কোটি ৯ লাখ টাকা।অন্যদিকে গত ২০২১-২২ অর্থবছরের প্রথম সাত মাসে এ বন্দর দিয়ে আমদানি হয়েছে ৮৫ হাজার ৩১২ টন চাল, যার আমদানি মূল্য ছিল ২৯৫ কোটি ৬১ লাখ টাকা।

আমদানীকৃত এসব চাল থেকে সরকারের রাজস্ব আয় হয়েছে ৪৪ কোটি ৩৪ লাখ টাকা। পরিমাণের দিক থেকে চলতি অর্থবছরের প্রথম সাত মাসে চাল আমদানি গত বছরের একই সময়ের তুলনায় বেড়েছে ৩৯ হাজার ৯৩ টন।ভোমরা বন্দর দিয়ে চাল আমদানিকারক প্রতিষ্ঠান নওগাঁ জেলার মেসার্স সোনালী ট্রেডার্সের স্বত্বাধিকারী কমল কুমার খৈথা জানিয়েছেন, বন্দর দিয়ে প্রতি মাসে ৮শ থেকে ১ হাজার টন চাল আমদানি করে তার প্রতিষ্ঠান।

জুলাই-জানুয়ারি পর্যন্ত সাত মাসে প্রতিষ্ঠানটি ৫ হাজার ৫০০ টন চাল আমদানি করেছে, যা গত অর্থবছরের তুলনায় অন্তত ৩০ শতাংশ বেশি।তবে সম্প্রতি চাল আমদানি কিছুটা কমেছে। কারণ হিসেবে তিনি বলেন, এলসি জটিলতার পাশাপাশি ডলার সংকটের জন্য আমদানি করতে সমস্যা হচ্ছে।

দেশীয় বাজারে চালের যে চাহিদা রয়েছে, তাতে এলসি ও ডলার সংকট না থাকলে আমদানি আরো অনেক বেশি বাড়ত।সাতক্ষীরা জেলা শহরের সুলতানপুর বড় বাজারের পাইকারি চাল ব্যবসায়ী জাহিদ হেসেন জানান, তার আড়তে দেশীয় চালের পাশাপাশি আমদানীকৃত চালও উল্লেখযোগ্য হারে বিক্রি হয়। এসব চালের মধ্যে মিনিকেট প্রতি কেজি ৬৭ থেকে ৬৮ টাকা, নাজিরশাইল ৭২ থেকে ৭৪ টাকা এবং মোটা স্বর্ণা ও রত্না চাল ৪৬ থেকে ৪৭ দরে বিক্রি হচ্ছে।

দেশীয় চালের তুলনায় আমদানীকৃত চালের দাম কেজিতে ৩ থেকে ৪ টাকা কম। এতে বাজারে এসব চালের চাহিদা বেশি।ভোমরা সিঅ্যান্ডএফ এজেন্ট ব্যবসায়ী অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি কাজি দিলওয়ার নওশাদ রাজু জানান, দেশের বড় বড় আমদানিকারক প্রতিষ্ঠান ভোমরা স্থলবন্দর দিয়ে চাল আমদানি করে। তবে সম্প্রতি ব্যাংকে এলসি জটিলতার কারণে ব্যবসায়ীরা চাহিদামাফিক আমদানি করতে পারছেন না। তার পরও গত অর্থবছরের তুলনায় চলতি অর্থবছরের প্রথম সাত মাসে চাল আমদানি বেড়েছে।

ভোমরা শুল্ক স্টেশনের দায়িত্বরত কাস্টমসের ডেপুটি সহকারী কমিশনার নেয়ামুল হাসান জানিয়েছেন, গত অর্থবছরের তুলনায় চলতি অর্থবছরের প্রথম সাত মাসে এ বন্দর দিয়ে চাল আমদানি বেড়েছে। বাজারের ঊর্ধ্বমুখী চাহিদা আমদানি বৃদ্ধিতে প্রধান ভূমিকা রেখেছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো সংবাদ