রবিবার, ২৬ মে ২০২৪, ১২:১০ পূর্বাহ্ন

পোর্তোকে বিদায় করে চ্যাম্পিয়ন্স লিগের কোয়ার্টার ফাইনাল নিশ্চিত করেছে ইন্টার

প্রতিনিধির / ৬৪ বার
আপডেট : বুধবার, ১৫ মার্চ, ২০২৩
পোর্তোকে বিদায় করে চ্যাম্পিয়ন্স লিগের কোয়ার্টার ফাইনাল নিশ্চিত করেছে ইন্টার
পোর্তোকে বিদায় করে চ্যাম্পিয়ন্স লিগের কোয়ার্টার ফাইনাল নিশ্চিত করেছে ইন্টার

উয়েফা চ্যাম্পিয়নস লিগের শেষ ষোলোর দ্বিতীয় লেগে গোলশূন্য ড্র করে দুই লেগ মিলিয়ে ১-০ ব্যবধানে এগিয়ে থেকে পর্তুগিজ ক্লাব পোর্তোকে বিদায় করে চ্যাম্পিয়ন্স লিগের কোয়ার্টার ফাইনাল নিশ্চিত করেছে ইতালিয়ান জায়ান্ট ইন্টার মিলান।

তিনবারের ইউরোপ সেরা ইন্টার মিলান ২০১১ সালের পর প্রথমবারের শেষ আট নিশ্চিত করলো। আর ২০০৬ সালের পর এই প্রথম ইতালিয়ান দুই জায়ান্ট ইন্টার ও এসি মিলান চ্যাম্পিয়ন্স লিগের কোয়ার্টার ফাইনাল নিশ্চিত করলো।
শেষ ষোলোর প্রথম লেগে রোমেলু লুকাকুর শেষ মুহূর্তের গোলে ইন্টারের জয় নিশ্চিত হয়েছিল। কিন্তু কাল পোর্তোর মাঠ এস্তাদিও ডো ড্রাগাওতে নিজেদের মেলে ধরতে পারেনি ইতালিয়ান ক্লাবটি। বরং তাদের তুলনায় স্বাগতিক পোর্তোই কাল এগিওয়ে ছিলো মাঠের খেলায়। যদিও ইন্টার গোলরক্ষক আন্দ্রে ওনানাকে খুব কমই পরীক্ষায় ফেলতে পেরেছে। শেষ পাঁচবারের প্রচেষ্টায় এই নিয়ে তৃতীয়বারের শেষ আটে খেলার যোগ্যতা অর্জন করলো ইন্টার।

ম্যাচের একেবারে শেষভাগে স্টপেজ টাইমে পোর্তোর গোলের সবচেয়ে সহজ সুযোগটি এসেছিল। কিন্তু মেহদি তারেমি ও মার্কো গ্রুজিস উভয়েই বল পোস্টে লাগান। মারকানোর শট লাইনের উপর থেকে ক্লিয়ার করে সফরকারীরা।
ইন্টার মিডফিল্ডার হাকান কালহানোগলু বলেছেন, ‘এই মুহূর্তে অনেকেই আবেগী হয়ে উঠেছে। অনেক বছর পর আমরা এই কৃতিত্ব অর্জন করলাম। আমরা কিছু ভুল করেছি। কিন্তু শেষ পর্যন্ত জয় ধরে রাখতে পেরেছি। বিষয়টা সত্যিই কঠিন ছিল। এজন্য আমি পুরো দলকে অভিনন্দন জানাতে চাই।’

ঘরোয়া ফর্ম নিয়ে ইন্টার বর্তমানে বেশ সমালোচনার মুখে রয়েছে। কিন্তু কালহানোগলু মনে করেন কালকের ম্যাচটি সকলকে মানসিক ভাবে চাঙ্গা করে তুলবে, ‘চ্যাম্পিয়ন্স লিগে অনেক কিছুই ঘটতে পারে। এই ম্যাচটি আমাদের আত্মবিশ্বাস জোগাবে। গোল করতে না পারলেও শেষ বাঁশি বাজার আগ পর্যন্ত আমরা কঠোর পরিশ্রম করেছি।’ইন্টার কোচ সিমোনে ইনজাঘি ঘরের বাইরে অ্যাওয়ে ম্যাচগুলোতে দলের হতাশাজনক পারফরম্যান্স থেকে বেরিয়ে আসার লক্ষ্যস্থির করেছিলেন। আক্রমণভাগে তিনি মূল একাদশে খেলিয়েছেন এডিন জেকো ও লাউতোরো মার্টিনেজকে। শুরু থেকে বেঞ্চে ছিলেন প্রথম লেগের ম্যাচজয়ী তারকা রোমেলু লুকাকু।

শেষ মুহূর্তে ইনজুরিতে পড়ায় এই ম্যাচে ৪০ বছর বয়সী অভিজ্ঞ সেন্টারব্যাক পেপেকে দলে নিতে পারেনি পোর্তো। সান সিরোতে লাল কার্ড পাওয়ায় ওটাভিও কাল দলে ছিলেন না। ম্যাচের শুরুতে মাথিয়াস উরিবের শট অল্পের জন্য পোস্টের বাইরে দিয়ে চলে গেলে এগিয়ে যাওয়া হয়নি পোর্তোর। জেকো ও নিকোলো বারেলার দুটি শট দারুণ দক্ষতায় রুখে দেন পোর্তো গোলরক্ষক দিয়োগো কস্তা। বিরতির ঠিক আগে ব্রাজিলিয়ান উইঙ্গার পেপের ক্রস থেকে ইউস্তাকুইও বল ধরতে না পারায় পোর্তোর সহজ গোলের সুযোগ হাতছাড়া করেছে।বিরতির পরেও পোর্তো বেশ কিছু আক্রমণ করেছে। লো ড্রাইভে গুচিজ আন্দ্রে ওনানাকে পরীক্ষায় ফেলেছিলেন। গালেনোর শট রুখে দিয়ে ইন্টারকে রক্ষা করেন ওনানা। হ্যামস্ট্রিং ইনজুরিতে পড়ে মাঠ ছাড়তে বাধ্য হন আলেহান্দ্রো বাস্তোনি। ইনজুরি কাটিয়ে ম্যাচের শেষভাগে ইনজাঘির দলে ফিরেছেন মিলান স্ক্রিনিয়ার। স্টপেজ টাইমে মারাকানোর শট লাইনের উপর থেকে ক্লিয়ার করেন ডেনজেল ডামফ্রাইস। শেষ ভাগে তারেমির হেড পোস্টে লেগে ফেরত আসে, গ্রুজিচের শট ক্রসবারের জন্য জালে জড়ায়নি। ইনজুরি টাইমের সপ্তম মিনিটে পেপে দ্বিতীয় হলুদ কার্ড দেখে মাঠ ত্যাগ করেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো সংবাদ