রবিবার, ১৬ জুন ২০২৪, ১১:৪২ পূর্বাহ্ন

বান্দরবানে ভ্রমণে আবারো নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে জেলা প্রশাসন

প্রতিনিধির / ৭৮ বার
আপডেট : বৃহস্পতিবার, ১৬ মার্চ, ২০২৩
বান্দরবানে ভ্রমণে আবারো নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে জেলা প্রশাসন
বান্দরবানে ভ্রমণে আবারো নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে জেলা প্রশাসনবান্দরবানে ভ্রমণে আবারো নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে জেলা প্রশাসন

সন্ত্রাসবিরোধী অভিযান চলমান থাকায় বান্দরবানের রুমা, রোয়াংছড়ি ও থানচি উপজেলায় আবারও ভ্রমণে নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে জেলা প্রশাসন। বুধবার (১৫ মার্চ) সন্ধ্যায় বান্দরবান জেলা প্রশাসক ইয়াছমিন পারভীন তিবরীজি স্বাক্ষরিত এক গণবিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে বিষয়টি নিশ্চিত করা হয়েছে।

গণবিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, পর্যটকদের নিরাপত্তা নিশ্চিতে পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত রোয়াংছড়ি, রুমা ও থানচি উপজেলায় দেশি-বিদেশি পর্যটকদের ভ্রমণে নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে। তবে এ তিন উপজেলা ব্যতীত বাকি চার উপজেলায় পর্যটকরা ভ্রমণ করতে পারবেন।জেলা প্রশাসক ইয়াছমিন পারভীন তিবরীজি বলেন, দুর্গম পাহাড়ের কয়েকটি উপজেলায় সন্ত্রাসীদের ধরতে অভিযান পরিচালনা হচ্ছে। তাই এই মুহূর্তে এমন সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। যাতে কোনো পর্যটক কোথাও গিয়ে বিপদের মুখোমুখি না হন। তবে পরিস্থিতি ভালো হলে নিষেধাজ্ঞা আবার তুলে নেওয়া হবে।

জেলা প্রশাসকের কার্যালয় সূত্র জানায়, এর আগে গত ১০ ফেব্রুয়ারি থেকে রুমা উপজেলা ছাড়া থানচি ও রোয়াংছড়ি থেকে ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা তুলে নেওয়া হয়েছিল। গত বছরের ৩ অক্টোবর থেকে ওই তিন উপজেলায় আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সমন্বিত জঙ্গিবিরোধী অভিযান শুরু হয়। এরপর ১৭ অক্টোবর থেকে পর্যটক ভ্রমণের ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়। দফায় দফায় এ নিষেধাজ্ঞা বাড়ানো হয়েছিল। পাহাড়ে নতুন সশস্ত্র সংগঠন কুকি-চীন ন্যাশনাল ফ্রন্টের (কেএনএফ) গোপন আস্তানায় সমতলের নতুন জঙ্গি সংগঠন জামায়াতুল আনসার ফিল হিন্দাল শারক্কীয়া জঙ্গিরা প্রশিক্ষণ নেওয়ার তথ্যের ভিত্তিতে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর অভিযান এখনো চলমান।

এর আগে, শনিবার (১১ মার্চ) থানচি-রেমাক্রি-লেইক্রি সড়কের পরিবহন শ্রমিকদের ওপর হামলা করে কেএনএফ সন্ত্রাসী দল। এ সময় ১২ শ্রমিককে তারা অপহরণ করে। এদের মধ্যে এক শ্রমিক গুলিবিদ্ধ হন এবং চার শ্রমিককে কেএনএফ জিম্মি করে রাখে। অবশিষ্ট সাত শ্রমিককে মুক্তিপণের বিনিময়ে ছেড়ে দিলেও সেনাবাহিনীর সঙ্গে সড়ক নির্মাণ প্রকল্পের কাজ না করার জন্য শ্রমিকদের হুমকি প্রদান করে। রবিবার (১২ মার্চ) রোয়াংছড়ির কাটাপাহাড় এলাকায় সেনাবাহিনীর টহল দলের ওপর গুলিবর্ষণের ঘটনাও ঘটে। রোয়াংছড়ির কাটাপাহাড়ের গুলিবর্ষণে সেনাবাহিনীর একজন মাস্টার ওয়ারেন্ট কর্মকর্তা নিহত ও দুজন সৈনিক আহত হয়েছেন বলে সশস্ত্র বাহিনীর আন্তঃবাহিনী জনসংযোগ পরিদপ্তরের (আইএসপিআর) সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়।

তবে মঙ্গলবার (১৩ মার্চ) রাতে অপহৃত বাকি শ্রমিকদের কেএনএফ মুক্তি দিয়েছে বলে থানচি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ইমদাদুল হক জানিয়েছেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো সংবাদ