বৃহস্পতিবার, ০১ জুন ২০২৩, ১০:৪৫ পূর্বাহ্ন

নিরাপত্তাকর্মী ও গৃহকর্মী খাতে কর্মী নেওয়ার আগ্রহ প্রকাশ করেছে মালয়েশিয়া

প্রতিনিধির / ২৬ বার
আপডেট : মঙ্গলবার, ২১ মার্চ, ২০২৩
নিরাপত্তাকর্মী ও গৃহকর্মী খাতে কর্মী নেওয়ার আগ্রহ প্রকাশ করেছে মালয়েশিয়া
নিরাপত্তাকর্মী ও গৃহকর্মী খাতে কর্মী নেওয়ার আগ্রহ প্রকাশ করেছে মালয়েশিয়া

বাংলাদেশি অভিবাসীদের জন্য মালয়েশিয়ায় নতুন করে দুটি খাত তৈরি হতে পারে। একটি হলো নিরাপত্তাকর্মী, অন্যটি গৃহকর্মী। এ দুই খাতে কর্মী নেওয়ার বিষয়ে মালয়েশিয়া সরকার আগ্রহ প্রকাশ করেছে। গতকাল সোমবার দুই দেশের ওয়ার্কিং গ্রুপের ভার্চুয়ালি বৈঠক শেষে এ কথা জানান প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব আহমেদ মুনিরুছ সালেহীন।

সচিব বলেন, ‘মালয়েশিয়া বাংলাদেশ থেকে নিরাপত্তাকর্মী নেবে। পাশাপাশি গৃহকর্মী নেওয়ার বিষয় আগ্রহ প্রকাশ করেছে। আমরা প্রথমটিতে খুবই উৎসাহিত। আর গৃহকর্মী নেওয়ার বিষয়ে জানিয়েছি, এ বিষয়ে বিস্তারিত আলাপ করে তাদের জানাব। তাদের বলেছি, তারা যেন এ বিষয়ে পুরো প্রক্রিয়াটি আমাদের জানায়।’আহমেদ মুনিরুছ সালেহীন আরো বলেন, ‘বাংলাদেশ এখন নিরাপত্তাকর্মী হিসেবে তালিকাভুক্ত দেশ নয়। তবে তাদের আগ্রহের জন্য আমরা এখানে অন্তর্ভুক্ত হচ্ছি। আশা করছি, এখান থেকে ভালো রেভিনিউ তৈরি হবে। তবে গৃহকর্মী পাঠানোর বিষয়টি আমাদের এখানে স্পর্শকাতর। তাদের বলেছি, এ বিষয়ে একটা সুস্পষ্ট গাইডলাইন থাকতে হবে। তারা বলেছে, ইন্দোনেশিয়া থেকে যে প্রক্রিয়ায় গৃহকর্মী নেয়, সেই একই প্রক্রিয়ায় বাংলাদেশ থেকে গৃহকর্মী নেবে। তারা এ বিষয়ে ড্রাফট পাঠালে আমরা কর্তৃপক্ষের সঙ্গে আলাপ করে সিদ্ধান্ত নেব।’

প্রবাসী কল্যাণ সচিব বলেন, ‘গৃহকর্মীর ক্ষেত্রে তারা জানাচ্ছে যে বাংলাদেশের জন্য এক হাজার কোটা নির্ধারণ করেছে; কিন্তু আগে তো সিদ্ধান্ত হতে হবে যে আমরা কর্মী কী প্রক্রিয়ায় পাঠাব? কারণ আমাদের কাছে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হলো কর্মীদের নিরাপত্তা ও ভালো থাকার ব্যবস্থা করা। নিরাপত্তাকর্মীর ক্ষেত্রে তারা কোনো সংখ্যা বলেনি। নিরাপত্তাকর্মীর ক্ষেত্রে তাদের লক্ষ্য হচ্ছে, সেনাকল্যাণ সংস্থার রিক্রুটিং এজেন্সি থেকে অবসরপ্রাপ্ত সেনা কর্মকর্তা বা প্যারামিলিটারি কর্মকর্তাদের নেওয়া।’আর কোনো আলোচনা হয়েছে কি না—জানতে চাইলে আহমেদ মুনিরুছ সালেহীন বলেন, ‘তারা এখন অনলাইন সিস্টেম বাস্তবায়ন করতে সম্মতি জানিয়েছে। আশা করছি, আগামী ১৫ এপ্রিলের মধ্যে এটি বাস্তবায়িত হবে। এটা হলে আমাদের ডাটাবেইস থেকে কর্মী নেওয়া, রিক্রুটমেন্ট ও ক্লিয়ারেন্সগুলোর সঙ্গে তাদের সিস্টেমকে একত্রীকরণ সহজতর হবে। এতে আমাদের সামগ্রিকভাবে কর্মী বাছাই প্রক্রিয়ায় আরো স্বচ্ছতা আসবে। এ ছাড়া মাঝেমধ্যে যে অনিয়মের কথা শোনা যায় সেগুলো বন্ধ হয়ে যাবে।’

এর আগে গত শনিবার নতুন করে বিদেশি কর্মী নেওয়ার সব ধরনের আবেদন ও প্রক্রিয়া স্থগিত করে মালয়েশিয়া সরকার। দেশটির মানবসম্পদমন্ত্রী ভি শিবকুমার ওই দিন এক বিবৃতিতে এ তথ্য জানান।নতুন করে আবেদনপত্র না নেওয়ার বিষয়ে জানতে চাইলে আহমেদ মুনিরুছ সালেহীন বলেন, ‘মালয়েশিয়ার শ্রমবাজারে আবেদনের কোটা স্থগিতে উদ্বেগের কারণ নেই। চাহিদাপত্র অনুযায়ী আবেদনকারীদের মালয়েশিয়ায় যেতে বাধা নেই।’


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো সংবাদ