বৃহস্পতিবার, ২৫ এপ্রিল ২০২৪, ০২:১৪ অপরাহ্ন

জঙ্গিদের ব্যবহৃত ১৪টি অ্যাপ নিষিদ্ধ করল ভারত

প্রতিনিধির / ১৩৭ বার
আপডেট : সোমবার, ১ মে, ২০২৩
জঙ্গিদের ব্যবহৃত ১৪টি অ্যাপ নিষিদ্ধ করল ভারত
জঙ্গিদের ব্যবহৃত ১৪টি অ্যাপ নিষিদ্ধ করল ভারত

আরো একটি ডিজিটাল স্ট্রাইক দিয়েছে ভারত সরকার। গোপন বার্তা পাঠাতে একাধিক অনলাইন অ্যাপ্লিকেশন ব্যবহার করছিল বেশ কিছু জঙ্গি গোষ্ঠী। এই সমস্ত অ্যাপের মাধ্যমেই খবর পৌঁছচ্ছিল পাকিস্তানে। এবার সেই সব অ্যাপের ওপর সম্পূর্ণ নিষেধাজ্ঞা জারি করল কেন্দ্রীয় সরকার।

সূত্রে জানা যায় যে, নিরাপত্তা এড়াতে কাশ্মীর উপত্যকায় একাধিক সন্ত্রাসবাদীরা বিভিন্ন অ্যাপের মাধ্যমে পাকিস্তানের ইসলামাবাদে অবস্থিত জঙ্গি গোষ্ঠীদের গোপন খবর পাঠাচ্ছিল। সরকারের নিরাপত্তা এড়ানোর জন্য ‘ক্রিপটিক কোড’ ব্যবহার করে এই বার্তা পাঠাচ্ছিল সন্ত্রাসবাদীরা।জানা গেছে, মোট ১৪টি অ্যাপ বন্ধ করেছে কেন্দ্রীয় সরকার। অ্যাপ গুলো হচ্ছে – ক্রিপভাইসর, এনিগমা সেফউইস উইক্রিম মিডিয়াফায়ার, ব্রায়ার, বিচ্যাট, ন্যান্ডবক্স কনিয়ন, আইএমও, এলিমেন্ট, সেকেন্ড লাইন, জাঙ্গি এবং থ্রিমা।

কেন্দ্রীয় সরকারের এক কর্মকর্তা জানান, ওভারগ্রাউন্ড ওয়ার্কার এবং জঙ্গিরা নিজেদের যোগাযোগ রাখার জন্য নির্দিষ্ট চ্যানেলের ব্যবহার করছিল। এই চ্যানেল ট্র্যাক করার সময় দেখা যায় যে ব্যবহৃত অ্যাপগুলোর কোনো প্রতিনিধি ভারতে নেই। পাশাপাশি উক্ত অ্যাপগুলোতে যা যা কর্মকান্ড হচ্ছিল তা ট্র্যাক করা কঠিন ছিল।আরো জানা যায় যে, জাতীয় নিরাপত্তার জন্য হুমকিস্বরূপ এবং ভারতীয় আইন মেনে চলে না এমন বেশ কিছু অ্যাপ তালিকাভুক্ত করা হয়েছে। এই সমস্ত অ্যাপ সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়কে নিষিদ্ধ করার জন্য অনুরোধ জানানো হয়েছিল। উক্ত অ্যাপগুলো তথ্য প্রযুক্তি আইন ৬৯এ ধারার অধীনে নিষিদ্ধ করা হয়েছে।

গোয়েন্দা সংস্থাগুলো জানিয়েছে, ইসলামাবাদে গোপন খবর পাঠানোর পাশাপাশি জম্মু কাশ্মীর উপত্যকায় সন্ত্রাসবাদ ছড়ানোর জন্য ব্যবহার করা হচ্ছিল এই অ্যাপগুলো। যদিও এই পদক্ষেপ প্রথমবার নয়।

২০২০ সালে তথ্য প্রযুক্তি আইন ৬৯এ ধারার অধীনে ১১৮টি অ্যাপ নিষিদ্ধ করেছিল কেন্দ্রীয় সরকার। ভারতের বাইরে তথ্য পাচারের অভিযোগের এই সমস্ত অ্যাপ নিষিদ্ধ করেছিল সরকার। তারপর থেকে একাধিকবার অ্যাপ নিষিদ্ধ করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। ভারতের সার্বভৌমত্ব, অখণ্ডতা ও নিরাপত্তার স্বার্থে এই পদক্ষেপ নিয়েছে সরকার।যে অ্যাপগুলো নিষিদ্ধ করা হয়েছে তার মধ্যে অধিকাংশ রয়েছে চিনা অ্যাপ। গত ফেব্রুয়ারি মাসেই ২৩০টি চিনা অ্যাপ নিষিদ্ধ করার আদেশ দেয় সরকার।

এই অ্যাপগুলোর মধ্যে ১৩৮টি ছিল বেটিং অ্যাপ এবং ৯৪টি লোন লোডিং অ্যাপ। এরই মধ্যে ভারত থেকে নিষিদ্ধ হয়েছে টিকটক এবং পাবজির মতো বড় অ্যাপ্লিকেশনও।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো সংবাদ