শনিবার, ২৫ মে ২০২৪, ০২:৫৩ পূর্বাহ্ন

বিমানবন্দরের যাত্রীসেবায় নতুন দুই অ্যাপস ও সেবা উদ্বোধন

প্রতিনিধির / ১৪৭ বার
আপডেট : বুধবার, ১০ মে, ২০২৩
বিমানবন্দরের যাত্রীসেবায় নতুন দুই অ্যাপস ও সেবা উদ্বোধন
বিমানবন্দরের যাত্রীসেবায় নতুন দুই অ্যাপস ও সেবা উদ্বোধন

হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের যাত্রীসেবা আরও সহজ করার লক্ষ্যে ‘ডিজিটাল এয়ারপোর্ট সার্ভিস অ্যাপ’ ও ‘হাইট ক্লিয়ারেন্স ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম’ নামে নতুন দুটি অ্যাপস উদ্বোধন করা হয়েছে। এতে যাত্রীরা নির্বিঘ্নে বিমানবন্দরে বিভিন্ন জায়গা খুঁজে পাওয়াসহ অন্যান্য সেবা পাবেন।

বুধবার (১০ মে) বেলা সোয়া ১১টায় বিমানবন্দরের অভ্যন্তরীণ টার্মিনালে আয়োজিত ‘বেবিচকের বিভিন্ন উন্নয়নমূলক পদক্ষেপের উদ্বোধনী অনুষ্ঠান’-এ এই অ্যাপের উদ্বোধন করেন বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন প্রতিমন্ত্রী মো. মাহবুব আলী।হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের বহির্গামী ও আগমনী যাত্রীদের জন্য সহজ ও আধুনিক উপায়ে আরও উপযুক্ত সহযোগিতার উদ্দেশ্যে বাংলাদেশ বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষের (বেবিচক) সহযোগিতায় ‘HSIA ডিজিটাল এয়ারপোর্ট সার্ভিস’ নামক এই মোবাইল অ্যাপ্লিকেশনটি আইসিটি বিভাগের মোবাইল গেম ও দক্ষতা উন্নয়ন প্রকল্পের মাধ্যমে তৈরি করে প্রাইমটেক সল্যুশনস লিমিটেড স্পিনঅফ স্টুডিও এবং ইনোভ্যাজিওন টেকনোলজিস।

হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের মাধ্যমে বহির্গামী ও আগমনী দেশি/বিদেশি সব যাত্রী এবং বিশেষ করে প্রবাসী বাংলাদেশী রেমিটেন্স যোদ্ধাদের সহজ এবং আধুনিক সহায়তা দেওয়ার জন্য এই অ্যাপ্লিকেশনটি প্রস্তুত করা হয়েছে বলে জানিয়েছে কর্তৃপক্ষ।অ্যাপ ব্যবহারকারীকে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে নিযুক্ত গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের সংশ্লিষ্ট সব প্রতিষ্ঠান (স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়, প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান

মন্ত্রণালয়, জাতীয় রাজস্ব বোর্ড, স্বাস্থ্য বিভাগ, বাংলাদেশ পুলিশ, অ্যাভিয়েশন সিকিউরিটি) এই মোবাইল অ্যাপের মাধ্যমে সব ধরণের তথ্য ও নির্দেশনা দিয়ে যাত্রীদের সব ধরনের সহযোগিতা ও সেবা দিতে সক্ষম হবে।এটি ব্যবহারে প্রবাসী বাংলাদেশী কর্মী বিমানবন্দরে করণীয় সব পদক্ষেপের সুনির্দিষ্ট নির্দেশনা পেয়ে প্রতিটি পদক্ষেপ কারও সহযোগিতা ছাড়াই নিজে সম্পন্ন করতে পারবে। এই মোবাইল অ্যাপ্লিকেশনের দুটি উল্লেখযোগ্য আধুনিক প্রযুক্তির ব্যবহার হচ্ছে।

১. অগমেন্টেড রিয়ালিটি (এআর) ইনডোর লোকেশন সার্ভিস, যার ব্যবহার করে বিমানবন্দরের ভেতরে পরবর্তীতে কোন দিক দিয়ে কোথায় পৌঁছাতে হবে তার দৃশ্যমান নির্দেশনা পাবে।

২. ভয়েস সুবিধা ব্যবহার করে বাংলা ও ইংরেজিতে সুনির্দিষ্ট তথ্য ও নির্দেশনা পাওয়া যাবে।

এছাড়া ফ্লাইটের তথ্য, গন্তব্য নির্দেশিকা, ওয়েজ আর্নার্স কল্যাণ ডেস্ক, বিমানবন্দরের তথ্যও জানা যাবে।

অন্যদিকে, হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরসহ দেশের সব বিমানবন্দরের অবস্টেকল লিমিটেশন সারফেস (ওএলএস) অন্তর্ভুক্ত এলাকার ভবন নির্মাণে কাজ করবে হাইট ক্লিয়ারেন্স ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম অ্যাপস। বিমানবন্দরের রানওয়ে থেকে ১৫ কিলোমিটার ব্যাসার্ধের মধ্যে যে কোনো জায়গায় ভবন বা স্থাপনা নির্মাণে বেবিচক থেকে উচ্চতার ছাড়পত্র নিতে হয়।

বেবিচকের এয়ার ট্রাফিক ম্যানেজমেন্ট বিভাগ থেকে এটি দেওয়া হয়ে থাকে। রাজউক বা অন্য সংস্থা উচ্চতার ছাড়পত্র চাইলে এভাবে দেওয়া হতো। বিমানবন্দরের ভৌগোলিক স্থানাঙ্কভিত্তিক ভবন/স্থাপনা নির্মাণে উচ্চতার ছাড়পত্র দিতে মোবাইল অ্যাপস ব্যবহারে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের অনুশাসন দেওয়া হয়েছিল।

এর পরিপ্রেক্ষিতে তথ্যপ্রযুক্তি বিভাগের মাধ্যমে উচ্চতার ছাড়পত্র দিতে হাইট ক্লিয়ারেন্স ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম অ্যাপস করার সিদ্ধান্ত নেয় সরকার। প্রাথমিকভাবে শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর ও তেজগাঁও বিমানবন্দর বিবেচনায় রেখে একটি অ্যাপস প্রস্তুত করা হয়। ২০২২ এর ৩০ জুন থেকে এটি পরীক্ষামূলকভাবে চালু হয়। উল্লিখিত অ্যাপসের মাধ্যমে দ্রুততম সময়ে নিরাপত্তা ছাড়পত্র পাবেন সংশ্লিষ্টরা।

এছাড়া, বিমানবন্দরের নিরাপত্তা পাস সংশ্লিষ্ট বিষয়ে দ্রুততম সময়ে নিষ্পত্তির জন্য এভসেক আইডি নামে ডিজিটাল পাস এরও আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করা হয় একই অনুষ্ঠানে।

এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান এয়ারভাইস মার্শাল এম মুফিদুর রহমান, মন্ত্রণালয়ের সচিব মোকাম্মেল হোসেন, হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের নির্বাহী পরিচালক গ্রুপ ক্যাপ্টেন কামরুল ইসলাম প্রমুখ।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো সংবাদ